টলিউড ইন্ড্রাস্ট্রির প্রাণের ‘দোসর’ তিনি, আজ তাঁর জন্মদিন!

তাঁকে ‘চোখ তুলে’ একটিবার দেখার জন্য মরিয়া থাকেন বাঙালি দর্শক। প্রায় তিন দশক ধরে সিনে-প্রেমীদের মধ্যে এইভাবেই রাজ করে চলেছেন ‘মিস্টার ইন্ড্রাস্ট্রি’ প্রসেনজিৎ চ্যাটার্জী। আজ, ৩০ সেপ্টেম্বর তাঁর জন্মদিন। ১৯৬২ সালে অভিনেতা বিশ্বজিৎ চ্যাটার্জীর ঘর আলো করে আসেন ছোট্ট ‘বুম্বা’। শৈশবেই অভিনয় জগতে হাতে খড়ি হয় বিশ্বজিৎ-পুত্রের। কিংবদন্তি পরিচালক হৃষিকেশ মুখার্জীর ছবি, ‘ছোট্ট জিজ্ঞাসা’ তে শিশু শিল্পীর ভূমিকায় অভিনয় করেন প্রসেনজিৎ চ্যাটার্জী। বলা বাহুল্য, এই ছবি তাঁকে শ্রেষ্ঠ কাজের জন্য এনে দিয়েছিল বেঙ্গল ফিল্ম জার্নালিস্টস অ্যাসোসিয়েশন – এর সম্মান।

শিশু শিল্পী হিসেবে যথেষ্ট খ্যাতি অর্জন করতে করতে, ১৯৮৩ সালে বিমল রায় পরিচালিত ছবি, ‘দুটি পাতা’ তে তিনি প্রথম মূল চরিত্রে অভিনয় করেন। ১৯৮৭ সাল ছিল টলিউডের ‘বাদশা’র জীবনের এক অন্যতম ‘টার্নিং পয়েন্ট’। এই বছরেই মুক্তি পায় তাঁর ‘অমর সঙ্গী’ ছবিটি। বলতে বাকি রাখে না, এই ছবি এবং ছবির কালজয়ী গান, ‘চিরদিনই তুমি যে আমার’ অভিনেতার সাফল্যকে এক অন্য মাত্রায় নিয়ে যায়।

১৯৮৯ সালে বলিউডের ছবিতে কাজ করেন প্রসেনজিৎ চ্যাটার্জী। ডেভিড ধাওয়ান পরিচালিত ‘আঁধিয়া’ তে অভিনয় করে যথেষ্ট প্রাসংসা পান বাঙালির প্রিয় ‘বুম্বা’।

প্রসেনজিৎ চ্যাটার্জী এবং পরিচালক ঋতুপর্ণ ঘোষ ছিলেন যেন একে অন্যের ‘দোসর’। ঋতুপর্ণের হাত ধরেই প্রসেনজিৎ নিজের অভিনয় দক্ষতাকে আরও তীব্রভাবে প্রমাণ করতে পেরেছেন। ‘চোখের বালি’, ‘দহন’, ‘উনিশে এপ্রিল’, ‘দোসর’ ছবিতে তাঁর অভিনয় মুগ্ধ করে দর্শককে। অমিতাভ বচ্চনের সঙ্গে ঋতুপর্ণ ঘোষ পরিচালিত ছবি ‘দ্য লাস্ট লিয়ার’ এ অভিনয় করেন প্রসেনজিৎ।

এমন একটা সময় এসেছিল, যখন প্রসেনজিৎ-ম্যাজিক ও কাজ করছিল না টলিউড ইন্ড্রাস্ট্রিতে। সেই সময় হাল ধরেন সৃজিত মুখার্জী। প্রসেনজিৎ কে নিয়ে বাঙালিকে উপহার দেন ‘অটোগ্রাফ’। আবার নতুন করে বাংলা ইন্ড্রাস্ট্রিতে প্রাণের জোয়ার আসে।

এরপর একের পর এক সাহসী ছবি উপহার দিয়েছেন অভিনেতা। সময় পাল্টেছে। মানুষের রুচির সঙ্গে তাল মিলিয়ে নিজেকে আরও প্রমাণ করতে সক্ষম হয়েছেন প্রসেনজিৎ। করেছেন হিন্দি ওয়েব সিরিজে অভিনয়ও। ভর্তি হয়েছে উপহারের ঝুলি। আজ তাঁর শুভ জন্মদিনে, টেক টকি পরিবারের পক্ষ থেকে রইল এক রাশ শুভ কামনা।

Scroll to Top